এসব আমি বুঝি না, আমার স্ত্রী আবার এটিতে বেশ পটু:- মোস্তাফিজ

করো’নাভাই’রাস ম’হামা’রির কারণে বিশ্বের সব খেলা বন্ধ, বন্ধ সব ধরনের ক্রিকেটীয় কার্যক্রম। এর বিকল্প না বাংলাদেশের ক্রিকেট। আর তাই ক্রিকেটাররা যে যার মতো করে সময় কাটাচ্ছেন। কেউ কখনো মানুষকে সহায়তা দিচ্ছেন, কখনো বাসায় বসে রান্না করছেন,

কেউবা আবার গেমস খেলছেন। এই যেমন মোস্তাফিজ বাসায় বসে গেমস খেলছেন, তবে তিনি তেমন বুঝেন না, বরং তার স্ত্রী তার থেকেও বেশি পটু!

বাংলাদেশের জাতীয় দৈনিক ‘প্রথম আলো’কে নিজের সময় কাটানো নিয়ে বলার সময় মোস্তাফিজ বলেন;“ ইদানিং ফেসবুক ব্যবহারের চেয়ে গেমসই বেশি খেলছি। কয়েকটি গেমস নামিয়ে নিয়েছি ফোনে।

গেমস আমি ভালো খেলতে পারি না। এসব খুব একটা বুঝিও না। আমার স্ত্রী আবার এটিতে বেশ পটু। আমি যদি স্কোর ৫০০ করি, সে করে ৩০০০! যখন বুঝি না, বোঝানোর দায়িত্ব সেই নেয়।”

এই সময় নিজের বাসায় বসে বিভিন্ন কাজ করছেন মোস্তাফিজ। কখনো ফুটবল খেলছেন, কখনো ঘেরে যান, বিলে যান। আবার কখনো ছাদে সময় কাটান। তবে সবচেয়ে বেশি সময় কাটাচ্ছেন নিজের সখের জিনিসের সাথে। মোস্তাফিজের সখ হচ্ছে কবুতর পোষা।

নিজের সখ নিয়ে এই পেসার আরও বলেন;“দিনের সবচেয়ে বেশি সময় কাটে ছাদে কবুতরের সঙ্গে। কবুতর পোষা আমরা বড় শখ, ওখানেই দিনে অন্তত চার ঘণ্টা কেটে যায়। সকালে তাড়াতাড়ি ঘুম থেকে উঠে কবুতরকে খেতে দিই। চেয়ার পেতে বসে বসে কবুতরের খাওয়া দেখি। দুপুরে আর বিকেলেও যাই কবুতর দেখতে।”

এছাড়া বর্তমান সময়ে সবচেয়ে বেশি কষ্টে আছেন নিম্ন ও মধ্যবিত্তের মানুষেরা। তবে নিম্ন শ্রেণির মানুষরা বলতে পারলেও, বেশি কষ্টে আছে মধ্যবিত্তরা। আর আরো বুঝে গোপনে তাদের সহায়তা করতে এগিয়ে আসবেন মোস্তাফিজ। তিনি আরও বলেন;“করো’নার সময়ে আসলে কমবেশি সবাই বি’পদে আছে। বিশেষ করে নিম্ন আয়ের মানুষ আর মধ্যবিত্তরা। নিম্ন আয়ের মানুষেরা তবুও মুখ ফুটে চাইতে পারে।

কিন্তু মধ্যবিত্তরা নিজের সং’কটের কথা কাউকে বলতে পারে না। এদের কষ্টই বেশি।” “করো’না সং’কটে মানুষের পাশে দাঁড়াতে আমাদের খেলোয়াড়েরা অনেকে অনেক কিছু নিলামে তুলছে দেখছি। আমি অবশ্য এটা নিয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত নিইনি। বিষয়টা আগে বোঝার চেষ্টা করছি। আর মানুষের পাশে দাঁড়ালেও সেটা একেবারেই গোপন রাখতে চাই।”– যোগ করেন মোস্তাফিজ।

Related posts

Leave a Comment